ঘরোয়া উপায়ে রুক্ষ চুলের সমাধানঃ

ঘরোয়া উপায়ে রুক্ষ চুলের সমাধানঃ

চুল আমাদের সকলেরই অনেক প্রিয়।কম বেশি আমারা সবাই চুল পরা সমস্যায় ভুগি।চুল পরা রোধ করার জন্য পার্লারে গিয়ে টাকা খরচ করে হেয়ার ট্রিটমেন্ট করার পরও আমাদের সমস্যার সমাধান হয় না।আবার অনেকে আছেন যাদের চুল অনেক শুষ্ক,অতিরিক্ত শুষ্ক হওয়ার জন্য চুলের আগা ফেটে গেছে ফলে চুলের গ্রোথ হচ্ছে না।

চুল পরার সমস্যা অনেক কারনেই হতে পারে।যেমনঃঘুম কম হলে,দুশ্চিন্তা করলে,প্রোটিনের অভাব হলে,মাথায় খুশকি থাকলে ইত্যাদি।

চুলের ঠিক মতো যত্ন না করলে চুল পরা সমস্যাটি হয়।আমাদের আগে জানতে হবে।চুলের সঠিক যত্নের পদ্ধতি।

★যেকোনো হেয়ার প্যাক ব্যবহারের আগে চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে।ময়লা চুলে প্যাক ব্যবহার করার উচিত নয়।

★সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন চুলের গোড়ায় কুসুম গরম তেল দিয়ে মাসাজ করতে হবে।ময়লা চুলে তেল দেওয়া যাবে না।এতে চুল পরা আরো বাড়তে পারে।কমপক্ষে ২থেকে ৩ ঘন্টা চুলে তেল রাখতে হবে।সারারাত রাখতে পারলে আরো ভালো।

★খুশকি দূর করার জন্য তেলের সাথে কয়েক ফোটা লেবুর রস ব্যবহার করবেন ৩ থেকে ৪ ঘন্টা চুলে রাখার পর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলবেন।অবশ্যই সপ্তাহে ৩ দিন কন্ডিশনার ব্যবহার করবেন।

এছাড়াও ঘরোয়া কিছু উপকরণ দিয়ে চুলকে ঝলমলে স্মুথ আর শাইনি করতে পারেন।যাদের চুল অনেক শুষ্ক,রুক্ষ এবং আগা ফাটার ঝামেলায় ভুগছেন এই হেয়ার প্যাকটি তাদের জন্য। এটি তৈরি করতে প্রয়োজন হবেঃ

১)২টি কলা।কলাগুলোকে খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট টুকরো করে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিতে হবে।

২)কলার ঘন পেস্টের সাথে ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল নিতে হবে।

৩)এবং ২ চামচ মধু দিয়ে ভালো ভাবে মিশিয়ে নিতে হবে।

তারপর ছোট ছোট সিথি করে চুলের গোড়ায় এবং পুরো চুলে লাগিয়ে নিতে হবে।এভাবেই ১ ঘন্টা চুলে রেখে দিতে হবে।এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুলগুলো ধুয়ে নিতে হবে।কন্ডিশনার লাগাতে হবে।ভালো রেজাল্টের জন্য সপ্তাহে ১ থেকে ২ দিন ব্যবহার করতে হবে।এই প্যাকটি ১ মাস টানা ব্যবহারে আপনার চুল পরা বন্ধ হবে এবং চুল দ্রুত গতিতে বেড়ে উঠবে।

কলায় আছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন,ক্যালসিয়াম,পটাশিয়াম,ন্যাচারাল অয়েল।যা আমাদের চুলকে গোড়া থেকে শক্ত করে।

Leave a Reply