রূপচর্চায় ভাতের উপকারিতা

রূপচর্চায় ভাতের উপকারিতা

ভাত আমাদের নিত্য দিনের খাবারের তালিকার একটি জনপ্রিয় খাদ্য।ভাত ছাড়া আমাদের একদিনও চলে।কথায় আছে আমরা মাছে ভাতে বাঙালী।কিন্তু এই ভাত দিয়েই যদি হয় রূপচর্চা তবে কেমন হয় বলুনতো!

কোরিয়ানরা যুগ যুগ ধরে তাদের রূপচর্চায় ভাত ব্যবহার করে আসছে।ভাতের মার চুল ও ত্বকের জন্য অনেক উপকারী।কোরিয়ানরা তাদের তারুণ্য ধরে রাখতে ভাত ব্যবহার করে আসছে বহু বছর ধরে।এটি ত্বকে বলিরেখা পরতে দেয়না।পোরস মিনিমাইজ করে।যাদের ওপেন পোরসের সমস্যা আছে তাদের জন্য ভাতের ফেস প্যাকের কোনো বিকল্প নেই।তাছাড়া এটি ব্রণের দাগ,ছোপ ছোপ কালো দাগ দূর করে ত্বক উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।

এখন কোরিয়ান গ্লাস স্কিন খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।রাইস ব্যবহার করে আপনিও পেয়ে যেতে পারেন এমন চকচকে গ্লাস স্কিন সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে।আজকে এমনি কিছু ভাতের ব্যবহার বলব যা আপনার ত্বক ও চুলের যত্নে ব্যবহার করতে পারেন।

রাইস ওয়াটারঃ

অর্থাৎ চালের পানি।এটির জন্য যেকোনো চাল ব্যবহার করা যাবে।এক মুঠো চাল ভালো ভাবে ধুয়ে একটি কাচের পাত্রে সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন।সাথে ১ থেকে ২ টুকরো লেবুর খোসাও রাখতে পারেন।সকালে এই পানি একটি স্প্রে বোতোলে তুলে চুলের গোড়ায় ভালো করে স্প্রে করে নিন।এবং ২৫ থেকে ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেলুন এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।এটি নিয়মিত ব্যবহারে আপনার চুল পরা বন্ধ হবে এবং চুল দ্রুত বৃদ্ধি হবে।

ভাতের মারের ব্যবহারঃ

ভাতের মার আমাদের কোনো কাজে লাগে না।কিন্তু ভাতের মারে রয়েছে অনেক গুণাগুণ। এটি মলিনতাকে দূর করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। ৩ চামচ বেসন ৪-৫ চামচ ভাতের মার এক সাথে মিশিয়ে একটি ঘন পেস্ট তৈরি করুন।মিশানো হয়ে গেলে পুরো মুখে ভালো ভাবে লাগিয়ে শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।তারপর নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।এটি প্রতিদিন ব্যবহারে আপনার ত্বক হবে দাগমুক্ত,ফর্সা ও সুন্দর।

রাইস ফেস প্যাকঃ
এটি তৈরি করার প্রধান উপকরণ হলো ভাত।৩ থেকে ৪ টেবিল চামচ ভাত নিয়ে একদম নরম করে সিদ্ধ করে নিন।এরপর গরম থাকা অবস্থায় ব্লিন্ডারে ভালো ভাবে ব্লিন্ড করে নিন। ব্লিন্ড করার পর ফোমের মত তৈরি হবে।এবার এটি নিয়ে পুরো মুখে ভালো ভাবে লাগিয়ে নিন।আর সম্পূর্ণ শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।তারপর নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।এটি ব্যবহার করে আপনি পাবেন ফর্সা ও দাগমুক্ত ত্বক।যা আপনার ত্বকে বয়সের ছাপ পরা রোধ করবে।সপ্তাহে অন্তত ২ থেকে ৩ দিন ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।এটি ব্রণের দাগ দূর করতেও কার্যকরী।ব্রণ দূর করতে এর সাথে সামান্য হলুদ ব্যবহার করুন।

Leave a Reply